1. info@www.prothomdhaka24.com : প্রথম ঢাকা :
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
গোবিন্দগঞ্জে অটোচালক দুলা মিয়া হত্যার মূল আসামি গ্রেফতার ঈদে চুরির সতর্কতায় ও নিরাপত্তা দিতে ঢাকা কেরানীগঞ্জ পুলিশ । টেকনাফে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের আগুনে পুড়ে ছাই বসত ঘর উখিয়া পালংখালীর জামতলী বাজার হতে র‌্যাবের হাতে অস্ত্র-গুলিসহ এক আরসা সন্ত্রাসী আটক। রাজধানীর মতিঝিল এলাকা হতে আনুমানিক ছয় লক্ষাধিক টাকা মূল্যমানের হেরোইনসহ ০২ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ জেলার সেরা সম্মাননা পেলেন পানছড়ির থানার ওসি শফিউল আজম ঘোলারচরে বিজিবির অভিযানে নৌকার পাটাতনের নীচ থেকে ৩০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার, আটক-১ মায়ানমারে আভ্যন্তরীন যুদ্ধে ব্যাপক খাদ্যসংকট এপার থেকে পাচার হচ্ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রীওপার থেকে আসছে ভোলা জেলার লালমোহন এলাকায় চাঞ্চল্যকর পারভিন বেগম (৩৭) হত্যাকান্ডের পলাতক প্রধান আসামি মোঃ রিপনসহ হত্যাকান্ডে সরাসরি জড়িত ০৩ জনকে কিশোরগঞ্জ জেলার সদর এলাকা হতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ বুড়িমারী এক্সপ্রেস বামনডাঙ্গা’য় যাত্রা বিরতির দাবিতে গণ অবস্থান ও মানববন্ধন।

সুন্দরগঞ্জ নানার বাড়ী থেকে নিখোঁজ সীনের(১২) সন্ধান চান বাবা-মা:

মোহন সরকার
  • প্রকাশিত: সোমবার, ৩ জুলাই, ২০২৩
  • ৯১ বার পড়া হয়েছে

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের বলরাম গ্রাম থেকে খন্দকার সোয়ায়েব আলমগীর সীন (১২) নামের এক শিশু নিখোঁজ হয়েছে। তার খোঁজে থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। সীনের বাবার নাম বাদশা আলমগীর ও মাতার নাম মরিয়ম বেগম শিরিনা। ছেলেকে ফিরে পেতে আকুতি জানিয়েছেন বাবা-মা।

কুড়িগ্রাম জেলাধীন উলিপুর উপজেলার দারুল এহসান মডেল মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন।গত ৩০ জুন শুক্রবার সন্ধা সাড়ে ৭ টার দিকে বলরাম এলাকা থেকে নিখোঁজ হয় । তার চুল ছোট-বড়, মুখের আকৃতি গোলাকার, গায়ের রঙ্গ শ্যামলা, উচ্চতা ৪ ফিট ও ওজন ৪০ কেজি।

রবিবার (২ জুলাই) সকালে নিখোঁজের বিষয়টি নিশ্চিত করেন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেএম আজমিরুজ্জামান।
তিনি বলেন,এর আগে গত শনিবার রাতে নিখোঁজ ছেলেটির নানা মো. মোফাজ্জল হোসেন থানায় এসে এ ডায়েরী করেন। ডায়েরী পাওয়া মাত্র প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এবং এ বিষয়ে পুলিশ ব্যাপক তৎপর আছে বলেও জানান ওসি।

নিখোঁজ সীনের মা মরিয়ম বেগম বলেন, ছেলের সঙ্গে সর্বশেষ দেখা ও কথা হয় নিখোঁজের দিন আছরের নামাযের পর। মসজিদ থেকে নামাজ আদায় করে বাড়িতে ফিরলে। এরপর খেলার কথা বলে বের হয়ে যায়। মাগরিবের নামাজের পরে বাড়িতে না ফিরলে ছেলের নানা-নানীকে খোঁজ নিতে বলি। তখন তারা বলেন হয়তো আছে কোথাও। টেনশন নিয়ো না। দেখো একটু পরেই হয়তো এসে যাবে। কিন্তু সে তো আসছে না। না দেখতে পাচ্ছি ছেলেকে না পারছি তার সাথে কথা বলতে। এভাবে বলতে বলতে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন এবং অচেতন হয়ে যান মা মরিয়ম বেগম।

নিখোঁজ ছেলের নানা মো. মোফাজ্জল হোসেন বলেন, মেয়ে জামাইর বাড়ি পাশ্ববর্তী কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলায়। ঈদের আগের দিন নাতিকে মেয়ের বাড়ি থেকে নিয়ে এসেছি। মেয়ে এসেছে ঈদের পরের দিন। সেদিনই সন্ধ্যারর পর থেকেই নাতিকে আর খুঁজে পাচ্ছি না। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে প্রায় পাগল এখন আমার মেয়েটা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট